হলুদ সাত : চ্যালেঞ্জ

প্রিয়ে, জানি, নিজেকে চিঠি লেখাটা কেমন একটা বিদ্ঘুটে ব্যাপার। লোকে বলবে, ডায়েরি লিখলেই তো পারো। সবাই লেখে তো। অামি বলি, না, অাজকাল কেউ লেখে না। অাজকাল সকলে ব্লগার, ডায়েরি লিখতে তো কালি-কলম-কাগজ-সময় এগুলো চাই, অাজকাল কার অাছে এসব শুনি? অাজকাল ব্লগার মানেই তো কোলে ল্যাপটপ পাশে চায়ের কাপ ঘরে ওয়াই ফাই। ব্যস! না গো, ডায়েরি…

Advertisements

হলুদ পাঁচ : অ্যাড

...ক্রিং ক্রিং...ক্রিং ক্রিং... -- হ্যালো। এবিপি। -- একটি অ্যাড দেওয়ার ব্যাপারে কিছু কথা বলতে চাই। -- ক্ল্যাসিফায়েড না ডিসপ্লে? -- অাপনাদের ফ্রন্ট পেজে উপরের কর্নারে যে অ্যাডটা থাকে... -- ও, ইয়ার প্যানেল। ধরুন অাপনাকে অ্যাড সেকশনে ট্রানসফার করছি। ...ক্রিং ক্রিং...ক্রিং ক্রিং... -- হ্যালো। এবিপি। -- নমস্কার। একটা অ্যাডের ব্যাপারে কিছু ইঙ্কোয়ারি অাছে। অাপনাদের ফ্রন্ট পেজে…

হলুদ তিন : মুরগি

"কঁক-কঁক-কঁক্কোর-কোঁক..." বিলিতি চা-কচুরির দোকানে বসে অাছি, সেই সকাল থেকে। বিলিতি বলতে মধুদার দোকান, ছিল মধুদার বাবা, হরিজেঠুর। সেই অাশি সালে খুলেছিলেন হরিজেঠু, গতবছর ডেঙ্গুতে হঠাৎ মারা যাওয়া অবধি রোজ দোকান দিতেন। সকালে এসে ঝাঁপ খুলতেন, সারাদিনে বোধহয় ভাত খাওয়ার জন্য মিনিট দশেক বাজারের ভিতরে যেতেন। রাতে ঝাঁপ বন্ধ করে বাড়ি যাওয়া অবধি পুরো সময়টা দোকানেই…

হলুদ দুই : নো রিফিউসাল

"ট্যাক্সি!" হলুদ ট্যাক্সিটা ঘ্যাঁচ করে সামনে এসে ব্রেক কষল। শুনে বুঝলুম, ঠিক ঘ্যাঁচ করে নয়, একটু যেন ঘ্যাঁসস মিশে অাছে। স্লিপ করছে ব্রেকটা। মেকানিককে দেখানো উচিত। ঠিক করলাম যদি যায় ড্রাইভারকে বলব। "কোথায় যাবেন?" অামি গন্তব্য বললাম। "উঠে পড়ুন," বলে সে মিটার চালিয়ে দিলো। হাতে স্বর্গ পেলাম। এত রাতে রাজি? তাও একই ভাড়া ডাবল না।…

ব্রজবুলি ৬ : বাইসাইকেল থিফ পার্ট ফাইভ

ব্রজবুলি সিরিজের ষষ্ঠ এনট্রি। বাকিগুলো অাগে পড়ে নিলে কন্টিনিউটিও থাকবে, বেচারি প্রোডাকশন ডিজাইনারীর চাকরিটাও খেয়ে মকেলে মবেম্বের বদহজমও হবে না। রিক্যাপ : নিতাই, ব্রজদা, অ্যান্ড ভুলো দ্য ডগ পিঁড়িমোবিলে চেপে কিডন্যাপ হওয়া ভিত্তোরিওকে খুঁজতে বেড়িয়েছে। অনেক খুঁজেও না পেয়ে শেষে ঘুমন্ত ভুলোর সঙ্গে ব্রজদা যোগাযোগ স্থাপন করার চেষ্টা করছেন। এতে তাঁকে সাহায্য করছে পুজোর ছুটিতে…

|| দুষ্টু দাশুর দিশি দশ || (এবারো হাফডজন)

শিশিবোতল হোমিওপ্যাথি পান্ডিমটি বংপেনের ৬ ডিসেম্বর ২০১৫ লেখাটি দেখে ইন্সপায়ার্ড। লেখাটি পড়ুন, অার বংপেনের অারও লেখা এখানেও পাবেন : http://bongpen.net/.

দুর্ধর্ষ চৈনিক দুশমন

-- অারে ঘোসবাবু, কেয়া হাল হ্যায়? বহোত দিনোঁ সে অাপসে কোই বাত নেহী হুয়ি। -- সে তো অাপনি ছিলেন না বলে। -- অারে হাঁ হাঁ, হামি থোড়া চেন্নাই গিয়াছিলাম। -- চেন্নাই! বলেন কী! এই সময়ে? চেন্নাই তো জলের তলায়। -- উও কেয়া হামি জানি না সমঝিলেন? -- তাও গেলেন? -- গিলাম তো। দোরকার ছিলো। --…

দুষ্টু দাশুর দিশি দশ : সেকেন্ড হাফডজন

হামিংবার্ড সাইজের ছড়ানো-ছিটানো ডিমরূপী পোস্ট একত্রে করে এই সিরিজ। ফটোশপিং। প্লেনে বসে পাতলুন না ভিজিয়ে চেন্নাই থেকে সেলফি কেনা। মা-জী। বদ্যির বাপ, ভৌ-য়ের বেস্ট ফ্রেন্ড, মডার্ন হনুমানজী। পোরিসকার বেপার। লাফিং স্টক। Foolএরা যখন কান্ড-জ্ঞানহীন হয়ে হাসির খোরাক জুগিয়ে থাকে। A Knight's Horse. কম পাওয়ারের দুঃস্বপ্ন। দাবার বোর্ডে অবান্তর টটলজি। বাদল-দীনেশ। একটু ওভারডোজ হয়ে গেলে, একা…

পুলিপিঠের কান্ডকারখানা : মধুভাই গান ভজন

-- পুলি। -- ... -- এই পুলি! -- ... -- {চেঁচিয়ে} এই...পুলি...পিঠে... -- {অাঁতকে উঠে, কান থেকে ইয়ারফোন খুলে} অ্যাঁ অ্যাঁ কী হয়েছে কে হয়েছে? -- মধুভাই ভজন গেয়েছেন। -- মানে...? -- মানে মধুভাই রে, ভজন গেয়ে শুয়োর তাড়িয়েছেন। -- মধুভাই? মানে ইয়ো... -- কত ভাল লোক তাই না? কত ধার্মিক। শুনেছি ভজন গেয়েই যা…