ব্রজবুলি সিরিজের ষষ্ঠ এনট্রি। বাকিগুলো অাগে পড়ে নিলে কন্টিনিউটিও থাকবে, বেচারি প্রোডাকশন ডিজাইনারীর চাকরিটাও খেয়ে মকেলে মবেম্বের বদহজমও হবে না।


রিক্যাপ : নিতাই, ব্রজদা, অ্যান্ড ভুলো দ্য ডগ পিঁড়িমোবিলে চেপে কিডন্যাপ হওয়া ভিত্তোরিওকে খুঁজতে বেড়িয়েছে। অনেক খুঁজেও না পেয়ে শেষে ঘুমন্ত ভুলোর সঙ্গে ব্রজদা যোগাযোগ স্থাপন করার চেষ্টা করছেন। এতে তাঁকে সাহায্য করছে পুজোর ছুটিতে মামাবাড়ি ঘুরতে অাসা চারমূর্তি জি – এস – এল – কে মিস্ট্রি মাস্টারস্।


 

“ডিটেক্টিভ পারো?”

“ভৌ।”
<হ্যাঁ।>

“তিনি পারবেন খুঁজে দিতে ভিত্তোরিওকে?”

“ভাউ ভা ভৌম? ভুরুত ভাউ।”
<পারবেন না মানে? অালবাত পারবেন।>

“কোথায় বসেন যেন?”

“ভেউ।”
<চেতলা।>

“তাহলে অার দেরী কেন? ট্রুপস্, টু দ্য পিঁড়িমোবিল!”

“ভুরুত ভৌ ভাউ ভাউ ভউম।”
<ভুরুত ভৌ ভাউ ভাউ ভউম!>

. . .
— এক্সকিউজ মি, শ্রীঘোষ?
— উঁ।
— শ্রীঘোষ, নমস্কার।
— কী জ্বালা? কী চাই…ওরে বাবা, অাবার অাপনি?
— নমস্কার। অামি বার-অ্যাট-ল।
— নমস্কার মানে? অাপনাকে চিনব না? সেদিন অামার লেখাটার…
— বারোটা বাজিয়েছিলাম?
— বাজিয়েছিলেন বৈকি।
— প্রমাণ অাছে?
— অ্যাঁ?
— বলি প্রমাণ অাছে কিছু? ডকুমেন্টারি এভিডেন্স? অাদালতে দাখিলযোগ্য? অ্যাডমিসিবল্ ইন কোর্ট অব ল?
— দাঁড়ান দাঁড়ান, এইরকম কিছু একটা বলে গতবারও অাপনি অামার ঘোল খাইয়েছিলেন।
— ঝোল।
— অ্যাঁ?
— ঝোল খাইয়েছিলুম। মাছের। ভাত দিয়ে।
— ঝোল খাইয়েছিলেন? ইয়ার্কি হচ্ছে? কেউ খাওয়ালে অামার মনে থাকবে না?
— অাপনি অাপনার স্মৃতিকে বড়ই ওভার-এস্টিমেট করেন।
— মানে? অামার মেমরী ফাইন অাছে। গত শুক্রবার বিহারীর কাছ থেকে ক-পিস ফুচকা খেয়েছি ঠিক মনে অাছে।
— ক-পিস?
— পনেরোটা।
— অাপনি নিশ্চিত?
— নিশ্চিত নই মানে? ফুচকা খেলুম অার মনে থাকবে না? জ্বলজ্যান্ত তিরিশটা টাকা…
— অানরিলায়েবেল্ অাই-উইটনেস অাপনি। অাদালতে অাপনার কথা গ্রাহ্য হবে না।
— বললেই হল অানরিলায়েবেল্? পনেরোটা ফুচকা খেলুম, বললুম একটু ঝাল কম দিতে, পেটটা একটু ইয়ে করছিল। খেয়ে তিনটে দশ টাকার নোট বের করে…ও।
— কী বুঝলেন?
— হুম।
— হুম হোয়াট? বলে ফেলুন শ্রীঘোষ, হুম হোয়াট?
— [ষোলটা ফুচকা।]
— জোরে বলুন, শুনতে পেলুম না। পুরো অাদালত যাতে শুনতে পায় বলুন।
— ষোলটা ফুচকা খেয়েছি। শেষেরটা ফাউ।
— তাহলে? হুজুর ধর্মাবতার, সাক্ষীকে কাঠগড়া থেকে নামানো হোক এবং কোর্ট রেকর্ডস্ থেকে ওনার সমস্ত বক্তব্য খারিজ করা হোক।
— কোর্ট রেকর্ডস থেকে খারিজ? কথাটা কেমন…
— অাইনি জার্গন। অাপনার টপ ফ্লোরে ঘুঁটে এনক্রোচ করেছে, এটা বোঝার মত ফ্রী এরিয়া নেই।
— অাবার টপ ফ্লোর? কী মুশকিল, অাগের বারও একই কথা বলেছিলেন। বলছি তো অামাদের ফ্ল্যাট, একটাই ফ্লোর।
— বাঃ, এইটে তো বেশ মনে অাছে। ব্রেনোলিয়া না ব্রাহ্মী শাক?
— সে অাবার কী?
— জানেন না?
— না তো। কী জিনিস?
— বলি শ্রীঘোষ?
— বলুন।
— অাপনি একটা কাজ করুন।
— কী কাজ?
— ডেলি সকালে উঠে পড়ুন। ভোর-ভোর।
— ওরে বাবা। পারবো না।
— পারতেই হবে। চিরকাল সকালকুষ্মান্ড হয়ে শো-রীরচর্চা করে যাবেন, সেটি হবে না।
— ওহ, অাপনি পড়েছেন পান্ডিমগুলো?
— থাক, অত হ্যাপি হতে হবে না। খারাপ নয় নিতান্ত, কিন্তু নিতান্তই টেম্পোরারি।
— টেম্পোরারি?
— তা নয় তো কী? অাপনার কী মনে হয়, ওইরকম ছোট-ছোট পান অার কেউ লিখতে পারে না? ডিজাইনটা খারাপ নয়, কিন্তু স্টাইল বেশি, সাবস্ট্যান্স বাড়ন্ত।
— অামার ওগুলো লিখতে বানাতে কিন্তু বেশ লাগে।
— লুক হিয়ার শ্রীঘোষ, অাই অ্যাম নট ইয়োর ক্রিটিক, নর ডু অাই হ্যাভ দ্য টাইম অ্যান্ড ইনক্লিনেশন টু বী সো। অাদালত-অ্যাঁ করে অামার অত সময় থাকে না যে অাপনার সব লেখা পড়ব এবং টিপ্পনী দেব। নাউ ব্যাক টু দ্য ম্যাটার অ্যাট হ্যান্ড।
— অাপনি অাবার অামার লেখা হাইজ্যাক করার চেষ্টা করছিলেন।
— মোটেও নয়। ওসব করার জন্য হাইজ্যাক নিউটনই তো অাছে। অামি এসেছিলাম অাপনাকে ফ্রেন্ডলি অ্যাডভাইস দিতে, অ্যাজ ইয়োর লইয়ার।
— মাই লইয়ার? অামি অাবার কবে অাপনাকে বহাল করলুম? দেখাই তো এই দ্বিতীয়বার।
— অাপনার মেমারী নিয়ে বেশি কিছু অার বলার নেই। ডক্টর বৈদ্যকে দেখান, ওনার ফোন নম্বর লিখে দিচ্ছি, একটা অ্যাপয়েন্টমেন্ট নিয়ে নেবেন। অার রেগুলার বাসকপাতার রস বেটে খান।
— বাসকপাতা অাবার কী জিনিস?
— তাও জানেন না? ভেরি গুড। তাহলে মেনুতে পটল দিয়ে শিঙিমাছের ঝোল অ্যাড করে নিন।
— অামার পটল একদম ভাল লাগে না।
— খেলে নিজেরই মঙ্গল। অাচ্ছা শুনুন, যার জন্য অাসা। অাপনি যেভাবে লেখাটা স্টার্ট করলেন, অাপত্তি অাছে।
— অাপত্তি? কেন?
— অাপনি গতবার শেষ কোথায় করেছিলেন, মনে অাছে? প্রায় তিন সপ্তাহ অাগেকার কথা। অাপনার মনে থাকার কথা নয়। ডকুমেন্টারি এভিডেন্স দেখুন। বার করুন ব্রজবুলি পাঁচ।
— করবো?
— অালবাত করবেন।
— কোথায় যে গেল…
— অাপনি অামার জুনিয়র হলে টপ-টু-বটোম চাবকে সিধে করতাম। দিন অামাকে…দেখি…ইয়েস, এই যে। কোথায় থেমেছিলেন, দেখুন।
— এই তো, ব্রজদা অার নিতাই ভুলো দ্য ডগের ঘুম ভাঙানোর চেষ্টা করছিল, জি-এস-এল-কে এলো, কার্ড দিলো।
— ভুলো ঘুম ভাঙলো কি?
— ভুলো দ্য ডগ। পুরো নাম না বললে মাইন্ড করে।
— হোয়াটএভার। তার ঘুম কি ভেঙেছে, অাগের লেখায়?
— না, সে তো এই লেখায় ভাঙার প্ল্যান অাছে।
— তাহলে যে অাপনি ভুলোকে দিয়েই শুরু করলেন? ঘুমটা ভাঙলো কখন, অফ ক্যামেরা?
— অফ ক্যামেরা? ইয়ে মানে লেখাতে অাবার অফ ক্যামেরা কী?
— এগজ্যাক্টলি। ইয়োর অনার, অাসামি নিজের অপরাধ স্বীকার করে নিয়েছেন। হি প্লীডস গিল্টি।
— কী অাবোল-তাবোল বকছেন?
— অাবোল-তাবোল? অামি? শ্রীঘোষ, অাই অ্যাম বার-অ্যাট-ল। অামি অাবোল-তাবোল বলি না। অাপনি ন্যারেটিভ নিয়ে ছেলেখেলা করছেন, অাই ক্যানট অ্যালাউ দ্যাট। অাফটার অল, অাই অ্যাম অ্যান অ্যালিটারেটিভ অ্যাটর্নি। ডিসিপ্লিনড্ ডিসকমবোবুলেটারি ডেন্টাল ডিস্কোর্স ইজ মাই ভোকেশন।
— অ্যাঁ?
— একদম। শর্ট ফর্ম ফর দ্য ইউনিভার্সাল ইনফরমেটিভ ইনস্টিটিউট ফর দ্য অ্যাব্রিভিয়েশন অফ অ্যালিটারেটিভ অ্যালফাবেটস অ্যান্ড দ্য ডিসকমবোবুলেটারি ডিস্ট্রিবিউশন অফ অ্যাফোরমেনশন্ড অ্যাব্রিজমেন্টস। অামি তার ফাউন্ডিং ফাদার, সোল সেয়ারহোল্ডার, পার্মানেন্ট প্রেসিডেন্ট, টেম্পোরারি ট্রেজারার, অার সিওর সিইও।
— অ্যাঁক।
— অাবার অ্যাঁক কেন। অাগের বারই তো বললুম।
— হ্যাঁ, কিন্তু তাও হজম করতে একটু…
— ওসব বাদ দিন। ব্যাক টু ইয়োর গল্প। একটু হেদিয়ে পড়েছেন, একটু রেস্ট নিয়ে নিন, তারপর বিগিন অ্যাট দ্য বিগিনিং। এরকম ইন মিডিয়াস রেস শুরু করলে বড্ড মুশকিল হয়।
— ইন মিডি…কী বললেন?
— ইন মিডিয়াস রেস। ল্যাটিন কথা, in medias res। মানে মাঝখান থেকে গল্প শুরু করা। অাপনার দ্বারা হবে না। অাপনি ওই কার্ড দেওয়া নিয়েই শুরু করুন।
— নোট করে নি কথাটা, ইন মিডিয়াস…মিডিয়াস…তার পর?
— রেস।
— …মিডিয়াস রেস। পরে লোককে বলে চমকে দেব। ভাববে অামি কত জানি।
— ওকে শ্রীঘোষ। অাজকের মতো অামাদের কন্সালটেশন শেষ। বিলটা অাপনাকে ডাকযোগে পাঠিয়ে দেব।
— বিলটা? মানে? কীসের বিল?
— বাঃ, কন্সালটেশনের, অফ কোর্স। অাই অ্যাম ইয়োর লইয়ার নাউ, মনে নেই? কাল সকালের মধ্যে পেয়ে যাবেন। অাই এক্সপেক্ট কুইক পেমেন্ট। লেখাটা অার ফুলিয়ে লাভ নেই, পরের বার শেষ করবেন। গুড ডে, শ্রীঘোষ। নমস্কার।

— —
সোমদেব ঘোষ, ২০১৫-১২-০৮, সন্ধ্যে ছ’টা, কলিকাতা শহর।

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s