𝅘𝅥𝅮𝅘𝅥𝅮𝅘𝅥𝅮 লেগেছে লেগেছে লেগেছে অাঅাঅাঅাগুননন… 𝅘𝅥𝅮𝅘𝅥𝅮𝅘𝅥𝅮

—  কীরে, অাবার কী হল? এক্ষুণি তো ফোন করলি।
—  ঝড় এলো গো, ঝড় এলো। কালবৈশাখি।
—  এই ভরদুপুরে কালবৈশাখি?
—  ওই হল, প্রি-বিকেল কালবৈশাখি।
—  প্রি-বিকেল?
—  মানে পোস্ট-বিকেল বা বিকেল-বিকেল নয়।
—  হুম। নোটেড। তো অামার ঠিক কী করনীয়?
—  না মানে খুব ইয়ে হচ্ছে।
—  কী হচ্ছে?
—  অাকাশে-বাতাসে হচ্ছে।
—  সে তো বুঝতেই পারছি। অানন্দ না হয়ে যায়? বৃষ্টি হলো?
—  হলো তো বটেই। অাজ সেকেন্ড টাইম!
—  নিঃসন্দেহে। এখন ধরেছে?
—  ধরেছে বলেই তো এসে ফোন করছি।
—  ফোন কানে দেওয়ার অাগে মাথা মুছেছিস?
—  মাথা?
—  স্পুটনিক থেকে পড়লি মনে হচ্ছে। তোয়ালে বলে একটা জিনিস অাছে জানিস তো?
—  তোয়ালে? অামি তোয়ালে ব্যবহার করি না। তোয়ালে কুটকুট করে। কতবার বলেছি।
—  অাচ্ছা বেশ। হেয়ারড্রায়ারটা…
—  হরগিজ নেহি। চুল শুকিয়ে ছাপ্পনছাড়া হবে। এটাও কতবার বলেছি।
—  জী হুজুর। গামছা?
—  চলতে পারে। গামছা বাঙালি ব্যাপার।
—  গুড। ইদানীং তার কি ব্যবহার হয়েছে?
—  গামছার?
—  অার নয় তো কার? ম্যাডাম গামছা কি ইউটিলাইজড হয়েছে ইন দ্য পাস্ট হাফ অাওয়ার?
—  কোন উত্তরটা দিলে পরে পিঠে চাঁটি অার মাথায় গাঁট্টা পড়বে না?
—  বুঝেছি। ওরে জিনিয়াস, ফোনে জল ঢুকলে বিগড়োবে, তারপর টেলিফোন অাপিসে ছোটাছুটি কে করবে শুনি?
—  ধুস, একটুখানি জলে টেলিফোনের কিস্যু হবে না।
—  অার চেয়ারটা?
—  কাঠেরটা নিয়ে বসেছি।
—  মাটিতে জল?
—  মা রেওয়াজ করছে। ন্যাতা বুলিয়ে দিয়েছি। খানিক বাদে অারেকবার।
—  মপটার কী হলো?
—  মপের চেয়ে ন্যাতা বেটার। এক্সারসাইজ হয়।
—  থাক, অার এক্সারসাইজ করে কাজ নেই। সকাল-বিকেল যথেষ্ট হয়।
—  সুযোগ পেলেই এক্সারসাইজ করা উচিত। শরীর-মন ভালো থাকে, খিদে বৃদ্ধি…
—  বারোটা বাজে। কলেজ?
—  সকালে নো ক্লাস। একটু পরেই বেরুবো।
—  হুম। সব বেস কভার্ড দেখছি।
—  অামি বেস কভার করেই রাখি।
—  বাঃ বাঃ বেশ বেশ। শুনে খুশি হলুম। অাচ্ছা, বৃষ্টির ছাঁটটা কোনদিকে ছিল লক্ষ্য করেছিস?
—  ছাঁটটা? দাঁড়াও, মনে করি। দরজা দিয়ে বেরিয়ে বাঁদিকে ঘুরতে বৃষ্টিটা ডিরেক্ট মুখে হিট করলো…ইয়েস, পুবদিকে। মানে ওই পুব-দক্ষিণ।
—  ব্যাপারটা ইন্টারেস্টিং নয়?
—  নরওয়েস্টার বলে বলছো তো?
—  বেশক। নর্থ-ওয়েস্ট থেকে না এসে সাউথ-ঈস্ট থেকে এলো।
—  ওই যে বললাম, বিকেল কালবৈশাখি হলে বায়ুকোণ হতো, প্রি-বিকেল কালবৈশাখি বলে অগ্নিকোণ হলো। অগ্নি বেশি অধৈর্য তো।
—  কী দারুণ ফিলজফি। বাই দ্য ওয়ে, পুবদিকের জানলাটা বন্ধ অাছে তো?
—  জানলা? পুবদিকের?
—  উইন্ডো। ঈস্টসাইড।
—  অাছে। একদম। ওয়ান হান্ড্রেড পার্সেন্ট। টু হান্ড্রেড পার্সেন্ট। বেট ফেলে বলতে পারি।
—  গুড গুড। তোর কনফিডেন্স দেখে খুশি হলুম। থাকলেই ভালো। খোলা থাকলে বিছানাটা ভিজে জাব হবে। অবশ্য তাতে তোর বিশেষ হেলদোল হবে বলে মনে হয় না।
—  বিছানা ভিজলে অার কি, শুকিয়ে নেবো। অবিশ্যি জানলা বন্ধ, সুতরাং ভেজার কোন চান্সই নেই।
—  এবং এ ব্যাপারে তুই নিশ্চিত? জানলা বন্ধ?
—  হান্ড্রেড পার্সেন্ট। টু হান্ড্রেড…থাউজ্যান্ড পার্সেন্ট।
—  হাউ নাইস। বন্ধ জানলা থেকে তো অার জলের ফোঁটা ম্যাজিকালি এসে গাপুচিকে…
—  গা-পু-চিইইইই…
—   …চান করাতে পারবে না। নিশ্চিন্ত হলাম, গাপুচি সেফ।
—  …ইইইঁক। চান? সেফ?
—  বেরোবার অাগে তোর ঘরটা একটু সাফসুতরো করছিলাম। বইগুলো সব তো এদিকওদিক ছড়ানো ছিটানো, তাই গুছিয়ে রাখার চেষ্টা করছিলাম।
—  বাট গাপুচি?
—  অাসছি তাতে। ঝাড়পোঁছ করে গুছিয়ে রাখবো, এমন সময় জরুরি পেজ এল। অফিসে ইমিডিয়েট ডেকেছে। হুটোপাটি করে বেরিয়ে পড়লুম।
—  কিন্তু গাপুচিইই?
—  সেটাই তো ব্যাপার। ঝাড়পোঁছের সময় বেচারার যাতে ধুলো লেগে হ্যাঁচ্চো না হয় তাই তাকে বালিশের পাশে শুইয়ে রেখেছিলুম। পুবের জানলার ঠিক নাকের তলায় প্রায়। তাই বলছিলুম অার কি, জানলাটা খোলা থাকলে জল এসে ভিজিয়ে দিতো। বাট তুই যথেষ্ট কর্তব্যপরায়ণ, ডেফিনিট জানলা বন্ধ করেছিস, বললিও সেরকম, তাই নো চিন্তা।
—  ইয়ে, দিদি?
—  ইয়েস মিস অলবেসকভার্ডপুলি?
—  অামাকে…মানে…একটু…
—  বাথরুমে যেতে হবে?
—  হ্যাঁ হ্যাঁ, কারেক্ট, বাথরুমে যেতে হবে। মানে এক্ষুণি।
—  গুড গুড, যাও যাও, ঘুরে এসো। প্রি-কালবৈশাখি এলে একটু বাথরুম ভিজিট দিতে হয়। এটাই পরম সত্য।
—  হ্যাঁ মানে সেটাই অার কি।
—  ও হ্যাঁ, অারেকটা কথা।
—  বলো। মানে কুইক।
—  ইন ফ্যাক্ট, দুটো কথা।
—  উফফ, বলো না রে বাবা।
—  ওয়ান। হেয়ারড্রায়ারটা অামার ঘরে ড্রেসিংটেবিলের ডানদিকের প্রথম দেরাজটায় অাছে।
—  হেয়ারড্রায়ার? কি…মানে, তা দিয়ে…প্রথম দেরাজটায়?
—  ফার্স্ট দেরাজ অন দি রাইট।
—  হুম।
—  অার সেকেন্ড। চুল অার প্লাশ এক জিনিস নয়।
—  হুম।
—  এবার তাহলে ফোনটা রাখি?
—  হুম।
—  লেবুচিঠি?
—  লেবুচিঠি।

__________________________

#সোঘো, বিকেল পাঁচটা বাজতে দশ মিনিট বাকি, জানলায় স্টপার লাগিয়ে রাখা একান্ত জরুরি, এস্পেশালি ঝড়ের সময়।
২৫ মে, ২০১৬ সাল, তিলোত্তমা।

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s